মহাসড়কে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মা ও শিশু নিহত।

0
12

দৈনিক ভোলা সময় নিউজ।

মহাসড়কে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মা ও শিশু নিহত।

ইত্তিজা হাসান মনির, জেলা প্রতিনিধি বরগুনা

পটুয়াখালী কুয়াকাটা মহাসড়কে দুটি পরিবহন গাড়ীর মুখোমুখি সংঘর্ষে মা আয়শা বেগম এবং ছেলে আয়ান নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছে।
ঘটনা ঘটেছে শনিবার বিকেল আনুমানিক ৪.টার সম পটুয়াখালী- কুয়াকাটা মহাসড়কের আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের উঃ ঘটখালী নামক স্থানে।

জানাগেছে, চট্রগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা কুয়াকাটা গামী সেবা পরিবহন (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৭২২৯) ও কুয়াকাটা থেকে ছেড়ে আসা দিনাজপুরগামী গোল্ডেন লাইন পরিবহন (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৭৮৩৫) পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের আমতলীর উঃ ঘটখালী নামক স্থানে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে গাড়ী দুটি দুমড়ে মুরচে সড়কের পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে সেবা পরিবহনের যাত্রী মোসাঃ আয়শা বেগম (৩২) ও তার ছেলে আয়ান (১) ঘটনাস্হলে মারা যায় এবং ৩০ জন আহত হয়েছে। স্হানীয়রা গুরুতর আহত অবস্হায় ইমরান, খাদিজা, মরিয়ম, চন্দন মল্লিক, রেরেকা সুলতানা, লতিফা, শাহীন ও রাজিবকে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে হাসপাতালের চিকিৎসক কেএম তানজিরুল ইসলাম তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল সেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত আয়শা বেগম ও ছেলে আয়ানের বাড়ী চট্রগ্রাম জেলার কাঠগড় ধুমপাড়া এলাকায়।

নিহত আয়শার মেয়ে আহত মরিয়ম বলেন, বাবা-মা ও তিন ভাই বোনে মিলে গ্রামের বাড়ী চট্রগ্রাম থেকে মহিপুর এক আত্মীয়ের বাড়ীতে বেড়াতে যাচ্ছিলাম। পথিমধ্যে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মা ও আমার ভাই মারা গেছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী রুবেল হাওলাদারসহ কয়েকজন বলেন, দ্রুত গতির দুই গাড়ীর মুখোমুখি সংঘর্ষে গাড়ী দুটি সড়কের পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে অনেক হতাহত হয়েছে।
আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার কেএম তানজিরুল ইসলাম বলেন, গুরুতর আহত ২০ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল, পটুয়াখালী ও খুলনা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
আমতলী থানার ওসি মোঃ শাহ আলম হাওলাদার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। সেবা পরিবহনের যাত্রী মা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে আনা হয়েছে।

পূর্ববর্তী খবরআমরা গর্বিত বঙ্গবন্ধুর স্নেহময় তোফায়েল আহমেদ ভোলার সন্তান-চেয়ারম্যান হাসান মিয়া।
পরবর্তী খবরভোলা আলীনগরে স্ত্রী দা দিয়ে কুপিয়ে নিজ স্বামীকে হত্যা করেন।