ভোলায় ঔষধ ব্যবসায়ীদের সাথে ঔষধ প্রশাসনের মত বিনিময় সভা।

0
9

ভোলায় ঔষধ ব্যবসায়ীদের সাথে ঔষধ প্রশাসনের মত বিনিময় সভা

স্টাফ রিপোর্টার

ঔষধ ও কসমেটিকস আইন ২০২৩ এবং নকল ভেজাল মেয়াদ উত্তীর্ণ ফিজিশিয়ান স্যাম্পল ও অ্যান্টিবায়োটিকের যৌক্তিক ব্যবহার করনে রবিবার বিকালে ভোলার ঔষধ প্রশাসনের সাথে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়েছে। প্রথমে অতিথিদেরক ফুল দিয়ে শুবেচ্ছা জানান, সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,সুমন বিশ্বাস ঔষধ প্রশাসন ভোলা,প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মোঃ ফরহাদ হোসেন ভোলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতি, ভোলা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মোঃ ইসমাইল হোসেন ভুট্টু ঔষধ ব্যবসায়ী, ভোলা সদর ,বিমান দে, দে মেডিকেল হল, আরো উপস্থিত ছিলেন মোঃনুরে আলম, সোনালি মেডিকেল, শ্যাম সুন্দর নব আর্দশ মেডিকেল, মোঃইব্রাহীম বিসমিল্লা মেডিকেল নতুন বাজার ভোলা,সাইফুল ইসলাম নিউ মেডিসিন কর্নার পরান গঞ্জ বাজার, ভোলার ঔষধ ব্যবসায়ীদের মধ্য আরো উপস্থিত ছিলেন আকবর হোসেন, মোঃরিয়াজ, মোঃ হাসান,নুরে আলম মেম্বার, মোঃ সুজন,রাজীব সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।সঞ্চালনা করেন মোঃআবু তাহের, সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ মনছুর আলম।
মতবিনিময় কালে সুমন বিশ্বাস বলেন ঔষধ ও কসমেটিক্স আইন- ২০২৩ এই আইনের ৩৩ টি ধারা আছে এদের মধ্যে নয়টি ধারা আমলযোগ্য এবং অ জামিন যোগ্য। বাকি ধারা জামিনযোগ্য এবং ও আমলযোগ্য। এই আইনে নকল ভেজাল ঔষধ বিক্রয় করলে ১৪ বছর কারাদণ্ড , লাইসেন্সবিহীন ওষুধের দোকান পরিচালনা করলে পাঁচ বছর কারাদণ্ড ও ৫ লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড, বিধান দেখে তৈরি করা হয়েছে। ১৯৪০ ও ১৯৮২ সালের ওষুধ আইন রোহিত ক্রমে নতুন আইন ঔষধ ও কসমেটিকস আইন ২০২৩ গত ১৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে গেজেট আকারে প্রকাশ হয়েছে।

আপনারা যদি সঠিক ভাবে মানসম্মত ঔষধ বিক্রি করেন তাহলে আপনাদের ভালো কাজের সাথে আমি আপনাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা করবো। আর সঠিক ভাবে ব্যবসা করবেন। দেখবেন ভালো থাকবেন আর ঔষধ ব্যবসা করতে হলে সবাইকে ঔষধ প্রশাসনের আইন মেনে চলতে হবে। ফার্মেসিতে ফার্মাসিস্ট করা লোক ও বৈধ লাইসেন্স থাকতে হবে। নকল ও ভেজাল ঔষধ বেচা কিনা থেকে বিরত থাকতে হবে। তাহলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব ।

পূর্ববর্তী খবরজমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে, স্বাধীন যুব উন্নয়ন সংস্থার ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত।
পরবর্তী খবরভোলার আলোচিত মাদক ব্যবসায়ী তেল কবির সহ আটক-২,